1. admin@ukbanglanews.com : admin :
সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ১২:০৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

ফাঁদের নাম ‘অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশন’, ৫ কোটি টাকার বেশি হাতিয়ে চম্পট

uk-bangla news
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১০২ বার

‘জলবায়ু পরিবর্তনে জীববৈচিত্র, প্রাণী জগৎ ধ্বংস হতে চলেছে, এই দুর্বিসহ বিপর্যয়ের ভয়াবহতা রক্ষা এবং প্রভাব মোকাবেলা ও পরিবেশ উন্নয়নে সচেতন করাসহ ফ্রি গাছের চারা বিতরণের জন্য এসেছিলো তারা। আর চলে গেলো কয়েক কোটি টাকারও বেশি হাতিয়ে।


টাকার পরিমাণ ৫ কোটিরও বেশি বলে সদস্যদের ধারণা। কিন্তু এসবের কিছুই জানেন না সরকারের কোন দপ্তর। গোয়েন্দা সংস্থাগুলোরও ছিলো না কোন নজরদারি। পড়ে আছে অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশনের শাখা অফিস, আঞ্চলিক অফিস, প্রধান কার্যালয়। এসব কার্যালয়ে ঝুলছে বড় বড় তালা, কোথাও কোথাও এখনো আছে চোখ ধাঁধাঁনো ‘অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশন’র বড় বড় সাইনবোর্ড। তবে নেই পিয়ন, অফিস সহকারী, সুপারভাইজার, ফিল্ড সুপারভাইজার, ম্যানেজার, ম্যানেজমেন্ট অফিসার, নির্বাহী পরিচালক, পরিচালক, লাপাত্তা হয়েছে সবাই। এদের কার্যক্রম ছিল ঝিনাইদহসহ মাগুরা এবং কুষ্টিয়া জেলাতেও।

চলতি বছরের শুরুর দিকে যখন করোনাভাইরাসের আবির্ভাব, চারিদিকে ভয় আর উদ্বেগ আতঙ্ক শুরু হয়েছে। মার্চ মাসের দিকে কাজকর্মহীন হয়ে ক্রমেই মানুষ যখন অসহায় ঠিক তখনই সমাজসেবায় ত্রাতা হিসাবে হাজির হয় ‘অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশন’ নামের একটি বেসরকারি সংগঠন। এর প্রতিষ্ঠাতা নির্বাহী পরিচালক আনোয়ার হোসেন ওরফে রানা মন্ডল ঝিনাইদহের হড়িনাকুন্ডু উপজেলার রঘুনাথপুর ইউনিয়নের মান্দিয়া গ্রামের মৃত আইজুদ্দিন মন্ডলের ছেলে। আর তার স্ত্রী উম্মে মোমেনিন ওরফে ইভা এই অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশনের পরিচালক। সংগঠনটি ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলা শহরের কবিরপুরে সাইনবোর্ড লাগিয়ে দ্বিতল অফিস নিয়ে জনবল নিয়োগ দিয়ে শুরু করে সদস্য সংগ্রহ। শৈলকুপার শেখপাড়া বাজারে একটি বহুতল ভবনের চারতলাতে খোলা হয় অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশনের আঞ্চলিক কার্যালয়। আর হরিণাকুন্ডু উপজেলার রঘুনাথপুর ইউনিয়নের মান্দিয়া বাজারে খোলা হয় প্রধান কার্যালয়। উপজেলা শহরের পাশে লোহাপট্টিতে খোলা হয় আরো একটি অফিস।

শৈলকুপা শাখা অফিস ও শেখপাড়ার আঞ্চলিক কার্যালয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ নিয়োগ করা হয় সুন্দরী নারীদের। গাছের চারা বিতরণ, সেলাই প্রশিক্ষণ ও প্রশিক্ষণ শেষে বিনামূল্যে সেলাই মেশিন বিতরণ আর স্বল্প সূদে দীর্ঘ মেয়াদী লোন এবং বয়স্ক ভাতার কথা বলে শুরু করে ইউনিয়নে ইউনিয়নে সদস্য সংগ্রহ আর সঞ্চয় নেয়া। ১টি গাছ আর জৈব সারের প্যাকেট দিয়ে নেয় ৫০ থেকে ১শ’ টাকা। সেলাই প্রশিক্ষণ বাবদ নেয় ২৭০ টাকা। আর লোন নেয়ার সদস্য বাবদ ৩শ’ টাকা। উপজেলা জুড়ে এভাবে গত ৯ মাসে ৫০ হাজার থেকে কমপক্ষে ১ লাখ সদস্য সংগ্রহ করা হয়। সদস্যদের কাছ থেকে এভাবে অর্থ আদায় করা হয়েছে ২ কোটি ২৭ লক্ষ থেকে কমপক্ষে ৩ কোটি টাকা। শুধু ঝিনাইদহ নয় একযোগে মাগুরা, কুষ্টিয়া ও ঝিনাইদহ এই ৩টি জেলাতে এই কথিত ফাউন্ডেশন অনুরুপ কার্যক্রম চালিয়ে এসেছে। কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানা ও মিরপুর থানা, মাগুরা জেলা সদরের ইছাখাদা এবং ঝিনাইদহের শৈলকুপা ও হরিণাকুন্ডু উপজেলাতে ছিলো কার্যক্রম। তবে সঞ্চয় সংগ্রহের পর বর্তমানে সকল অফিসই গুটিয়ে নিয়েছে। তবে তার নিজ উপজেলা হরিণাকুন্ডুতে প্রধান কার্যালয়সহ আরো একটি অফিস থাকলেও সেখানে ছিলো না কোন সদস্য সংগ্রহ বা সঞ্চয় জমা কার্যক্রম।

৩ জেলা থেকে লাখ লাখ সদস্য সংগ্রহ করে কমপক্ষে ৫ কোটি টাকারও বেশি হাতিয়ে নিয়েছে সংগঠনটি। এই প্রতিষ্ঠানে যাদের বিভিন্ন পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে তাদের কাছ থেকে ৫ হাজার, ১০ হাজারসহ হাতিয়ে নেয়া হয়েছে মোটা অংকের টাকা। প্রথম মাসের বেতন পেলেও ৮ মাসের বেতন দেয়া হয়নি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের।

অনুসন্ধান ও বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশনের অবগতি পত্রে দেখা যায়, তারা লিখেছে ‘জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে প্রাকৃতিক জীবও বৈচিত্র এবং প্রাণিজগত ধ্বংস হতে চলেছে। এ দূর্বিষহ বিপর্যয়ের ভয়াবহতা রক্ষায় এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় ও পরিবেশ উন্নয়নে অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশনের বাস্তবায়নে গাছের চারা লাগানো, গাছ সংরক্ষণ ও পরিবেশ উন্নয়নে জনগণকে সচেতন করাসহ বর্ষা মৌসুমে বিনামূল্যে গাছের চারা বিতরণের জন্য আপনার নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় সদস্য তালিকাভূক্ত করা হচ্ছে এ ব্যাপারে আপনাকে অবগতি করিলাম’। শুধুমাত্র অবগত করে দীর্ঘদিন বিভিন্ন উপায়ে আর্থিক কার্যক্রম চালিয়ে গেলেও গোয়েন্দা সংস্থা সহ সরকারি কোন প্রতিষ্ঠানেরই নজরদারি ছিলো না সাইনবোর্ড সর্বস্ব এ প্রতিষ্ঠানটির ওপর।

অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশনে ফিল্ড অফিসার হিসাবে কর্মরত শৈলকুপা পৌর এলাকার আউশিয়া গ্রামের তুহিন হোসেন, হরিহরা গ্রামের পিকুল হোসেনসহ কর্মকর্তারা জানান, লোক মারফত তারা জানতে পারেন অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশনে চাকুরির সুযোগ আছে। বেশ কিছুদিন ঘুরাঘুরির পর চলতি বছরের শুরুতে তিনি সহ আরো ২০ নারী পূরুষ প্রত্যেকের ৫ হাজার টাকা জামানত রাখার শর্তে নিয়োগ প্রাপ্ত হন। মার্চ মাস থেকে শুরু হয় সদস্য সংগ্রহ। প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার কথা সাধারণ মানুষকে জানালে দু-এক মাসের মধ্যে তাদের সদস্য সংখ্যা দাঁড়ায় ৫০ হাজারের বেশি। প্রথমে সদস্যদের আস্থা অর্জনে তাদের মাঝে ৫০ টাকার বিনিময়ে নিজ নার্সারি থেকে বিতরণ করা হয় এক ফুটেরও কম উচ্চতার একটি করে গাছের চারা। এরপর সদস্যদের সংগঠিত করা হয় সেলাই প্রশিক্ষণ ও প্রশিক্ষণ শেষে বিনামূল্যে সেলাই মেশিন এবং স্বল্প সূদে ১ থেকে ১৫ লাখ টাকা লোন ১০ বছর মেয়াদী এ কথা বলে। এছাড়া ৫০ হাজার সদস্যের কাছ থেকে সেলাই প্রশিক্ষণে নেওয়া হয় ২৭০ ও লোন কর্যক্রমে ৩শ’ টাকা নেয়া হয়। এভাবে অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশন কয়েক মাসে শৈলকুপা থেকেই ২ কোটি টাকারও বেশি হাতিয়ে নিয়ে লাপাত্তা হয় বলে জানান নিয়োগপ্রাপ্তরা। বর্তমানে তাদের কথিত এমডির কাছে জামানতের টাকা ও বেতন চাইলে উল্টো মামলার ভয় দেখাচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন তুহিনসহ ভূক্তভোগীরা।

অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশনের সেলাই প্রশিক্ষণের কাটিং মাস্টার হিসাবে নিয়োগপ্রাপ্ত সাতগাছী গ্রামের ঝর্ণা খাতুন জানান অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশনে তিনি ৫ হাজার টাকা জামানত রেখে ১৩ হাজার টাকা বেতনের চাকরিপ্রাপ্ত হন। কোন বেতন না দিয়ে এ প্রতিষ্ঠান লাপাত্তা। চাকুরি ও প্রশিক্ষনার্থীরা কিছুদিন আগে উপজেলার শেখপাড়াতে অরণ্য কেয়ারের আঞ্চলিক অফিস ঘেরাও করলে স্থানীয় প্রভাবশালী তোজাম মন্ডল ও রেজাউল খা’র সহযোগীতায় তাদের দাবী পূরণ না করে এ প্রতারক চক্রটি অফিস গুটিয়ে নিতে সক্ষম হয় বলে তিনি অভিযোগ করেন।

বর্তমানে তাদের সব অফিসের কর্যক্রম বন্ধ বলে তিনি জানান। ৫নং কাচেরকোল ইউনিয়নের উত্তর মির্জাপুর গ্রামের মোর্তজা হোসেনের স্ত্রী আফরোজা খাতুন জানান, অরণ্য কেয়ার নামের একটি প্রতিষ্ঠান লোন সেলাই প্রশিক্ষণের নামে তাদের ইউনিয়নের আনুমানিক ৩ হাজার নারী-পূরুষের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে এখন পলাতক। এসব টাকা চাইলে তাদের দেওয়া হচ্ছে মামলার হুমকি।

অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশনের অবগতিপত্র নিয়ে শৈলকুপার ৫নং কাচেরকোল ইউনিয়নের সচিব অসীম কুমার সরকার জানান, কয়েক মাস আগে অরণ্য কেয়ার নামের একটি ফাউন্ডেশন তাকে একটি চিঠি দিয়ে চেয়ারম্যান মহোদয়কে দিতে বলে। এরপর তারা কি কার্যক্রম করেছে তা তিনি জানেন না।

সমাজসেবা অধিদপ্তর বা সমবায় অধিদপ্তর বা সরকারের কোন দপ্তরের অনুমতি না থাকলেও সমাজসেবার নামে সদস্য সংগ্রহ ও তাদের কাছ থেকে টাকা নেওয়া প্রসঙ্গে অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক আনোয়ার হোসেন ওরফে রানা মন্ডল জানান, তার কোন অর্থ সম্পদ নাই। শুধুমাত্র বাবার তিন বিঘা জমি সম্বল। ঢাকায় অরণ্য এগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ নামে একটি কোম্পানি রয়েছে যার চেয়ারম্যান তার স্ত্রী। অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশন এ প্রতিষ্ঠানের সহযোগী প্রতিষ্ঠান। তিনি জানান, ঝিনাইদহ সমাজ সেবা অফিসে সমাজসেবার উপর কাজ করতে অনুমতির আবেদন করলে তারা তাকে ফিরিয়ে দেন। এরপর তিনি অনুমতি না পেয়ে ঝিনাইদহের শৈলকুপা, মাগুরা জেলা ও কুষ্টিয়ার বিভিন্ন সরকারি অফিসে অবগতিপত্র দিয়ে জলবায়ু পরিবর্তনের উপর সচেতন করতে সদস্য সংগ্রহ শুরু করি ও গাছের চারা বিতরণ করি। শৈলকুপাতে তার ২০ হাজার সদস্য রয়েছে বলে জানান। পরে এদের কাছ থেকে সেলাই প্রশিক্ষণের নামে ৩৫০ টাকা নেওয়া হয়। এভাবে তিনি শৈলকুপা থেকে ১০ লাখ টাকা পেয়েছেন বলে স্বীকার করেন। বর্তমানে তার কার্যক্রম সাময়িক বন্ধ বলে অফিস বন্ধ রেখেছেন। তার প্রতিষ্ঠানের কোন কর্মকর্তা কর্মচারী তার কাছে কোন টাকা পাবে না বলে তিনি দাবি করেন। আগামী বর্ষা মৌসূমে জলবায়ুর ওপর তিনি আবারো কাজ শুরু করবেন বলে জানান। তার প্রতিষ্ঠানে ম্যানেজমেন্ট অফিসার হিসাবে কুষ্টিয়ার নুসরাত ফারহানা ও ম্যানেজার হিসাবে মেহেরপুর জেলার বলিয়ারপুরের গ্রামের পলক হুসাইন নামে এক যুবক কর্মরত ছিলো।

অরণ্য কেয়ার ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক আনোয়ার হোসেন রানা দাবি করেন, তিনি ঢাকার কবি কাজী নজরুল স্কুল থেকে এসএসসি, নটরডেম কলেজ থেকে এইচএসসি, সিটি কলেজ থেকে বিএসসি করেন। এরপর দেশের বাইরে সিঙ্গাপুর গিয়ে সিঙ্গাপুর ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ালেখা শেষ করেন। এরপর দেশে ফিরে তিনি বগুড়া জেলায় জনকণ্ঠ পত্রিকার ক্রাইম রিপোর্টারের দায়িত্ব পালন করেন ৩ বছর। বর্তমানে সমাজ সেবার পাশাপাশি বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের হড়িণাকুন্ডু উপজেলার আইন বিষয়ক সম্পাদক ও জাতীয় পার্টির হরিণাকুন্ডু আইন বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া স্থানীয় বাজার কমিটির সভাপতিসহ নানা সমাজসেবামূলক কাজ করে আসছেন।

আনোয়ার হোসেন রানা অবশ্য স্বীকার করছেন সেলাই প্রশিক্ষণ ও গাছের চারা বিতরণ করে ১০ লাখ টাকা আয় করেছেন যার সিংহভাগই তিনি সদস্যদের মাঝে খরচ করেছেন। আর শৈলকুপা উপজেলাতে তার সদস্য সংখ্যা ২০ হাজার বলে জানান। তবে খোঁজ নিয়ে জানা যায় শৈলকুপাতেই এ প্রতিষ্ঠানের সদস্য সংখ্যা ৫০ হাজারের বেশি। এছাড়া মাগুরা জেলা ও কুষ্টিয়ার ইবি থানা ও মিরপুর থানাতে তার সদস্য সংখ্যা ৩০ হাজার বলে স্বীকার করেন।

ঝিনাইদহ জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপপরিচালক আব্দুল লতিফ শেখ জানান, জনগণকে সচেতন হতে হবে, করোনার এই সময়ে কোন ধরনের নিবন্ধন অনুমতি না নিয়ে এভাবে অর্থ কালেকশন বৈধ নয়, এটা গুরুতর অপরাধ। তিনি বলেন, জেলার আইনশৃঙ্খলা সভাসহ এনজিও সমন্বয় সভাতে বিষয়টি তুলবেন। প্রত্যন্ত এলাকাতে হওয়ায় সেভাবে তদারকি করতে পারেননি, তাছাড়া আপনাদের মাধ্যমে জানলাম, এটাও এক ধরনের তদারকি, দ্রুত তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঝিনাইদহ এনএসআই এর উপ-পরিচালক শরিফুল ইসলাম খান জানান, তিনি নতুন এসেছেন, অফিস অবগত করেনি, তথ্য জেনে তার বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নিবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2021 UK বাংলা News
Desing & Developed By SSD Networks Limited
error: Content is protected !!